দক্ষিণ আমেরিকার যে শহরে রাস্তায় রাস্তায় পড়ে লাশ

শহরের রাস্তায় পড়ে রয়েছে লাশ। ছবি: বিবিসি

করোনা ভাইরাসের কারণে এখন বিপর্যস্ত দক্ষিণ আমেরিকা। এই মহাদেশে একটি শহর রয়েছে যেখানে রাস্তায় রাস্তায় এখন লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়।

দেশটির নাম ইকুয়েডর। এই দেশের সবচেয়ে জনবহুল শহর গুয়াইয়াকিল।

করোনা ভাইরাসের কারণে এখানে মানুষজন শুধু হাসপাতালেই মারা যাচ্ছে তা নয়, রাস্তায় পড়ে থাকতে দেখা গেছে লাশ।

কোভিড-১৯ এর কারণে ইকুয়েডরের গুয়াইয়াকিলে বাড়িতে যাদের মৃত্যু হয়েছে তাদের লাশ সরিয়ে নিতে র্দীঘ সময় লেগে যাচ্ছে। কারণ লাশ দিন দিন বাড়ছে। ফলে লাশ সরাতে সময় লাগছে অনেক।

গুয়াইয়াস প্রদেশে করোনা ভাইরাসের কারণে ১ এপ্রিল পর্যন্ত ৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে। আর শনাক্ত হয়েছে ১৯৩৭ জনের মধ্যে।

প্রদেশটির রাজধানী গুয়াইয়াকিল। যেখানে ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর বসবাস ৭০ শতাংশ। তার উপর ভাইরাস পরীক্ষার আগেই যারা মারা গেছেন তাদেরকে এই পরিসংখ্যানের বাইরে রাখা হয়েছে।

দক্ষিণ আমেরিকার যে শহরে রাস্তায় রাস্তায় পড়ে লাশ

লাশ সরাতে সারাতে ক্লান্ত। ছবি: বিবিসি

গুয়াইয়াকিলে প্রকাশিত দৈনিক এল তেলেগ্রাফোর সাংবাদিক জেসিকা জাম্ব্রানো বলেছেন, ‘আমার বন্ধু বাজার করতে গিয়ে মোড়ের পাশে একজন মৃত ব্যক্তিকে পড়ে থাকতে দেখেন। রাস্তার ঠিক কয়েক মিটার দূরে আরও একটি লাশ রয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি।’

তিনি আরো বলেন, ‘এখানে আমরা রাস্তায় মানুষকে ঘুমোতে দেখতে অভ্যস্ত। এখন আমরা দেখছি গৃহহীন মানুষেরা শহরের কেন্দ্রে মারা যাচ্ছেন।’

দেশটির বাসিন্দা জেসিকা কাস্তেদা বলেন, ‘আমার মামা সেগুন্দো ২৮ মার্চ মারা গিয়েছিলেন। কেউই আমাদের সাহায্য করতে আসেনি। তার লাধ এখনও বিছানায় পড়ে আছে। আমরা ছুঁয়েও দেখতে পারিনি। চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে বিছানা পাওয়া যায়নি। তিনি বাড়িতেই মারা যান।’

যারা রাস্তায় পড়ে মারা যাচ্ছেন তাদের মৃত্যুর খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানাচ্ছে স্থানীয়রা। খবর: বিবিসি

ইত্তেফাক/জেডএইচ

LEAVE A REPLY