ট্রেন দুর্ঘটনা -হবিগঞ্জে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৯

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় দুই ট্রেনের সংঘর্ষে মহিলা ও শিশুসহ হবিগঞ্জের নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৯ জনে দাড়িয়েছে। এ ঘটনায় শোকে স্তব্ধ হয়ে গেছে পুরো জেলা। অতীতে কোন দুর্ঘটনায় আর এত লোক একসাথে মারা যায়নি। আহত হয়েছেন অনেকেই তাদের চিকিৎসার জন্য ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। এদিকে ইতিমধ্যে নিহতদের দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে। তাদের পরিবারের দাবি দুর্ঘটনায় দায়িদের বিরুদ্ধে যেন কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হয়।

দুর্ঘটনায় শোক প্রকাশ করা হয়েছে জেলা প্রশাসনের পক্ষে। নিহতদের প্রত্যেক পরিবারকে ১৫ হাজার টাকা করে দেয়া হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসাররা নিহত ও আহতদের পরিবারের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান।

জানা গেছে, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহত আরও দুইজন হচ্ছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার সৈয়দাবাদ গ্রামের আজমত উল্লাহর পুত্র রিপন মিয়া (২৬), নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামের হারুন মিয়ার পুত্র নজরুল মিয়া (২০)। এর আগে মঙ্গলবার ৭ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া যায়। তারা হচ্ছেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার বড় বহুলা গ্রামের শিশু ইয়াছিন আলম, আনোয়ারপুরের আলী মোহাম্মদ ইউসুফ, বানিয়াচংয়ের তাম্বুলিটুলার শিশু আদিবা আক্তার সোহা, মদনমুরত গ্রামের আল-আমিন, চুনারুঘাটের উবাহার রুবেল মিয়া তালুকদার, পাকুড়িয়া গ্রামের সুজন মিয়া ও আহমদাবাদ গ্রামের পেয়ারা বেগম মারা যান। দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও অনেকেই। দুর্ঘটনার খবরে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। শোকাহত পরিবারগুলোতে মাতম চলে। শোকে স্তব্ধ হয়ে পড়েন তাদের পরিবারের সদস্যরা।

নিহতদের কেউ বাবা মায়ের সাথে, কেউ কক্সবাজারে ঘুরতে গিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হন। আবার কেউ যান ব্যবসার কাজে, কেউবা চাকরি করতেন চট্টগ্রামে। এমন মর্মান্তিক দুর্ঘটনার খবরে স্তব্ধ হয়ে গেছেন জেলাবাসী। দুর্ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে দায়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানিয়েছেন স্থানীয়রা এবং নিহতদের স্বজনরা।

LEAVE A REPLY