বিক্ষোভে উত্তাল লেবানন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক

লেবাননে বিক্ষোভকারীরা। ছবি: সংগৃহীত

লেবাননে বিক্ষোভকারীরা সোমবারও পঞ্চম দিনের মত প্রতিবাদ সমাবেশ অব্যাহত রেখেছে। নজিরবিহীন বিক্ষোভ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দেশটির প্রধানমন্ত্রী সাদ হারিরি মন্ত্রীসভার জরুরি বৈঠক ডেকেছেন।

দেশটিতে জরুরি অর্থনৈতিক অবস্থা ঘোষণা, দুর্নীতি, মার্কিন ডলারের সংকট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর ভয়েস কলে ট্যাক্স যোগ করার পরিকল্পনার প্রতিবাদে লেবাননের হাজার হাজার মানুষ গত চারদিন ধরে বিক্ষোভ সমাবেশ করে আসছে। হোয়াটস আপ ও ম্যাসেঞ্জারে ডাক দেওয়া আহ্বানে সাড়া দিয়ে বিক্ষোভকারীরা প্রস্তাবিত করের বিরুদ্ধে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে প্রতিবাদে অংশ নিতে শুরু করে। সরকার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ভয়েস কলে ট্যাক্স যোগ করার পরিকল্পনা বাদ দিলেও বিক্ষোভকারীরা সার্বিক রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক সংস্কারের দাবিতে আন্দোলন অব্যাহত রাখে। গত কয়েক বছরের মধ্যে দেশটিতে এত বিশাল প্রতিবাদ বিক্ষোভ আর হয়নি।

সোমবার সকালেও বিক্ষোভকারীরা প্রধান প্রধান সড়ক অবরোধ করে রেখেছে। তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জনগণের প্রতি কাজ থেকে বিরত থাকতে আহ্বান জানাচ্ছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সোমবার মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক বসেছে। ধারণা করা হচ্ছে বৈঠকে অর্থনৈতিক সংস্কারের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে।

এর আগে রবিবার সন্ধ্যায় লেবানি মন্ত্রিসভার এক কর্মকর্তা সংস্কার প্রশ্নে সকল দলের সম্মত হওয়ার কথা জানিয়েছেন। এই সংস্কারের মধ্যে রয়েছে বর্তমান ও সাবেক প্রেসিডেন্ট, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী এবং আইন প্রণেতাদের বেতন অর্ধেকে নামিয়ে আনা, ধার্যকৃত কর বাতিল করা, টেলিযোগাযোগ খাতকে বেসরকারিকরণ এবং বিদ্যুৎ খাতকে ঢেলে সাজানো। তবে বিক্ষোভকারীরা বলেছেন, হারিরির অর্থনৈতিক সংস্কার প্রস্তাব যথেষ্ট নয়। তারা সকল রাজনীতিকের পদত্যাগ চান।

লেবাননের অর্থনীতি বেশ কয়েকবছর যাবৎ চড়াই উতরাইয়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। বিশ্ব ব্যাংকের হিসাব মতে, লেবাননের জনগণের এক-তৃতীয়াংশেরও বেশি মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে বাস করছে।

source:ইত্তেফাক/এসইউ/জেডএইচ

LEAVE A REPLY