গাঙ্গুলির পরিকল্পনা

ভারতীয় ক্রিকেট পাড়ায় গুঞ্জন চলছিল সৌরভ গাঙ্গুলি হতে যাচ্ছেন বিসিসিআইয়ের সভাপতি। গুঞ্জনটা সত্যি হয়েছে। আগামী ৯ মাস এই দায়িত্ব পালন করবেন তিনি। ভারতের ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় ক্রিকেটার হিসেবে বিসিসিআইয়ের সভাপতির পদে আসীন হয়েছেন প্রিন্স অব ক্যালকাটা। গাঙ্গুলি ও মহারাজকুমার বাদে যত জনই বিসিসিআইয়ের সভাপতি হয়েছেন তারা সবাই ছিলেন মন্ত্রী কিংবা এমপি।
আগামী ২৩ অক্টোবর বিসিসিআইয়ের অফিসের দায়িত্ব বুঝে নিবেন সৌরভ গাঙ্গুলি। ক্রিকেটার গাঙ্গুলির সর্বোচ্চ পদে আসীন হওয়ার ব্যাপারটি নিয়ে এখন সরগরম পুরো ভারত। কেমন হবে তার কার্যক্রম ইত্যাদি নিয়ে আগ্রহ সবার মনে। বিসিসিআই সভাপতি হিসেবে ভবিষ্যৎ পদক্ষেপ কেমন হবে, তা গতকাল কলকাতাভিত্তিক পত্রিকা আনন্দবাজারকে এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন সাবেক এ অধিনায়ক। সাক্ষাৎকারটিতে গাঙ্গুলির প্রথম উত্তরটি ছিল ভারতীয় ক্রিকেটকে আরো দূরে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যয়। এ জন্য তার প্রধান লক্ষ্য ঘরোয়া ক্রিকেটের আমূল পরিবর্তন। গাঙ্গুলি বলেন, ঘরোয়া ক্রিকেটকে নতুন করে ঢেলে সাজানো হবে আমার প্রথম কাজ। কারণ এখান থেকেই পরবর্তী সেরা খেলোয়াড়রা উঠে আসবে। ঘরোয়া লিগের আর্থিক ব্যাপারটিও বিবেচনায় রাখব। সবার সঙ্গে আলোচনা করে এ দিকটা দেখব। তিনি আরো বলেন, বিসিসিআইয়ে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা হবে আমার জন্য আরেক বড় চ্যালেঞ্জ। দীর্ঘদিন ধরেই বিসিসিআইয়ে অচলাবস্থা চলছে। আর এরপর আইসিসিতে আমাদের পুরনো প্রভাব ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করব। এখন তো আইসিসিতে আমাদের প্রভাব নেই বললেই চলে। আমি সেখানে দুর্বল হয়ে থাকতে চাই না।
আপনি তো মাত্র ৯ মাসের জন্য দায়িত্ব পেয়েছেন। এই সময়ের মধ্যে এত কাজ করতে পারবেন?। এমন প্রশ্নের জবাবে গাঙ্গুলি বলেন, অবশ্যই পারব। দেখেন আমি যখন ভারতীয় দলের অধিনায়কের দায়িত্ব নেই তখন আমাদের অবস্থা কিন্তু তেমন ভালো ছিল না। এরপর গত বছর আইপিএলের দল দিল্লি ক্যাপিটালসের ব্যাপারটিই দেখুন। আমি সেখানে যোগ দেয়ার পরই সাফল্য পেয়েছে তারা। আইপিএল শুরু হওয়ার পর প্রথমবারের মতো দিল্লি প্লে অফে খেলেছে। এই অভিজ্ঞতাগুলোই কাজে লাগাবো। তবে সবার আগে সবকিছুকে একটি সিস্টেমে নিয়ে আসতে হবে। সিস্টেমে চললে ৯ মাসে পারব না কেন?
বর্তমান ভারতীয় দল নিয়ে সন্তুষ্ট কিনা এমন প্রশ্নে গাঙ্গুলি বলেন, এ দলটি আসলেই দুর্দান্ত পারফরমেন্স করছে। সবচেয়ে বড় ব্যাপার নিয়মিত পারফরম্যান্স। আমরা শুধু বিশ্ব আসরের কোন শিরোপা জিততে পারিনি। তবে আগামী বছর টি-টোয়েন্টি বিশ^কাপে ভালো করবে এরা আমি বিশ্বাস করি।
এদিকে গাঙ্গুলি বিসিসিআইয়ের প্রধানের পদে জায়গা পাওয়ার জন্য ধন্যবাদ দিতে পারেন লোধা কমিটিকে। ২০১৫ সালে বিসিসিআইয়ের উন্নয়নের জন্য এই লোধা কমিটি সরকারের কাছে সুপারিশ করে ক্রিকেট বোর্ড থেকে রাজনৈতিক ব্যক্তিদের বিদায় জানানোর। তাদের সুপারিশ অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয় বিসিসিআই কার্যনির্বাহী কমিটি ও ভারতীয় সরকার।

source: ভোরের কাগজ

LEAVE A REPLY