দুজনেই সমান কিউট!

তারকা হওয়ার শর্টকাট পদ্ধতি জানেন? বলিউড তারকার সন্তান হওয়া। যেমন কারিনা কাপুর খান আর সাইফ আলী খানের ছেলে তৈমুর আলী খান। তৈমুর যা-ই করে, তা-ই নিউজ। তাকে প্রকাশ্যে পাওয়া গেছে তো হয়েছে। অন্য সবকিছু ছাপিয়ে তখন কেবল চলতে থাকে ক্লিক, ক্লিক। আর তৈমুরও কম যায় না। সে-ও পাপারাজ্জিদের কথামতো তাকায়, পোজ দেয়। আবার সাংবাদিকদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করতেও ভোলে না। হাত নেড়ে নেড়ে জিজ্ঞেস করে, ‘তুমি সকালে কী খেয়েছ?’

অনলাইন মাধ্যমে তাঁর অনেকগুলো ফ্যান পেজ আছে। তৈমুরের জনপ্রিয়তা তার বাবা বা মায়ের চেয়ে কোনো অংশে কম না। আর একই কথা প্রযোজ্য শাহরুখ খানের ছোট ছেলে আবরাম খানের জন্যও। সেই তালিকার সর্বশেষ সংযোজন বলিউডের আলোচিত তারকা সানি লিওন ও ড্যানিয়েল ওয়েবারের ছেলে আশার সিং ওয়েবার (১)। সম্প্রতি পাপারাজ্জিরা আবিষ্কার করেছে, তৈমুরের সঙ্গে আশারের চেহারায় অনেক মিল। আর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীদেরও নাকি একই মত।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে আশার আর তৈমুরকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে যে তুলনা চলছে, সেই বিষয়ে সানি লিওনকে প্রশ্ন করা হয়। ই টাইমসকে সানি লিওন বলেছেন, তৈমুরের মুখটা যেমন ছোট্ট ‘গোলু’, আশারেরও তেমন। অবশ্য তিনি আরও জানান, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম কী বলল না বলল, তাতে তেমন কিছু আসে যায় না তাঁর। কারণ, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের যখন যা ইচ্ছা, তা করবে।

তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম যা বলছে, তার সঙ্গে আবার পুরোপুরি একমত সানি লিওন। তিনি বলেন, ‘তৈমুর খুব কিউট। আশারও খুব কিউট।’ অর্থাৎ তৈমুর আর আশার দুজনই সমান কিউট। কেউ কারও থেকে কম নয়।

আশারের অবশ্য একটি যমজ ভাই আছে। তার নাম নোয়া সিং ওয়েবার। এই দুই যমজ ভাইয়ের আবার একটা বড় বোন আছে। তার নাম নিশা কাউর ওয়েবার (৪)। বিয়ের ছয় বছর পর সানি ও ড্যানিয়েল দম্পতি ২০১৭ সালে মহারাষ্ট্রের লাতুর থেকে ২১ মাসের নিশাকে দত্তক নেন। আর ২০১৮ সালের মার্চ মাসে সরোগেসি (গর্ভ ভাড়া নিয়ে) পদ্ধতিতে আশার ও নোয়ার মা হন সানি।

সানি লিওন এখন মহারাষ্ট্রের জুহুতে তিন সন্তানকে নিয়ে চমৎকার সময় কাটাচ্ছেন। যেখানে সানি লিওন আছেন, পাপারাজ্জিরাও ঠিক পথ চিনে পৌঁছে গেছে সেখানে। তাঁরা আজ হলুদ গাউন পরা সানি লিওনকে ঠিকই তিন সন্তানের সঙ্গে ক্যামেরাবন্দী করেছে।সূত্র:প্রথম আলো।

LEAVE A REPLY