আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মারামারি, পুলিশসহ আহত ২২

নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদাত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে পাশাপাশি সমাবেশ করাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া পাঁচজন পুলিশ সদস্যসহ উভয় গ্রুপের কমপক্ষে ২২ জন আহত হয়েছেন।

পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) রুহুল আমিনের নেতৃত্বে জেলা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ গিয়ে ১৩ রাউন্ড টিয়ালসেল ও ১৩ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুঁড়ে।

এ ঘটনায় আহত হন নীলফামারী-৩ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি গোলাম মোস্তফা, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল মান্নান, জলঢাকা থানার এসআই মামুনুর রশীদ, একই থানার কনস্টেবল মেহেদী হাসান, রুবেল হোসেন, নাছির উদ্দিন, সাইফুল ইসলাম, পথচারী শাহিনুর রহমান, দুলাল হোসেন, সাংবাদিক সেফাউল ইসলামসহ ২২ জন।

স্থানীয়রা জানান, দীর্ঘদিন ধরে জলঢাকা উপজেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে দুইটি গ্রুপ পৃথকভাবে ১৫ আগস্টে জাতীয় শোক দিবস পালন করে আসছিল। বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফার নেতৃত্বে একটি গ্রুপ পৃথকভাবে শোক র‌্যালি শেষে উপজেলার জিরো পয়েন্টে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ শেষে সেখানে সমাবেশ করছিল। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলীর মিন্টুর নেতৃত্বে শোক র‌্যালি উক্ত সমাবেশ স্থলে এসে বক্তব্যরত আব্দুল মান্নানকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দিয়ে কিল-ঘুষি মারতে থাকে। তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনছার আলীর হাতে লাঞ্ছিত হন সাবেক সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা। এ সময় হামলাকারীরা সমাবেশের চেয়ার টেবিল ভাংচুর করতে থাকে। এতে উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও ইটপাটকেল নিক্ষেপের ঘটনা ঘটে।

এ বিষয়ে গোলাম মোস্তফা ও আনসার আলী মিন্টু একই অভিযোগ করে বলেন, জামায়াত-শিবিরসহ লাঠিসোটা নিয়ে আমাদের ওপর অতর্কিত হামলা চালানো হয়। আমরা এ ঘটনায় মামলা দায়ের করবো।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রুহুল আমিন (নীলফামারী সার্কেল) বলেন, আহত জলঢাকা থানার উপ-পরিদর্শক আব্দুল্লাহ আল মামুনকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। অন্যরা স্থানীয় হাসপাতাল ও বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন।

LEAVE A REPLY