আবারো দুর্দান্ত স্মিথ, ব্যর্থ ওয়ার্নার

ছবি: সংগৃহীত

বিশ্বকাপের অনুশীলনে যোগ দেয়ার আগে আইপিএল মৌসুমটা দুর্দান্ত কাটিয়েছেন সানরাইজার্স হায়দরাবাদের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। ৮ ফিফটি এবং ১ সেঞ্চুরিতে ৬৯.২০ গড়ে করেছিলেন ৬৯২ রান। সে তুলনায় ঠিক স্বপ্রতিভ ছিলেন না রাজস্থান রয়্যালসে খেলা ওয়ার্নারের স্বদেশী স্টিভেন স্মিথ।

তবে জাতীয় দলের সঙ্গে যোগ দিয়ে যেনো ঠিক উল্টো অবস্থানে এ দুই ক্রিকেটার। রীতিমতো উড়ছেন স্মিথ আর খেই হারিয়ে ধুঁকছেন ওয়ার্নার। নিউজিল্যান্ড একাদশের বিপক্ষে তিন ম্যাচের সিরিজে পুরোপুরি ব্যর্থ ওয়ার্নার, তবে রানের দেখা পেয়েছেন স্মিথ।

আজ শুক্রবার তিন ম্যাচ সিরিজের শেষটিতে ডি-এল মেথডে ৫ উইকেটের জয় পেয়েছে অস্ট্রেলিয়া একাদশ। যাতে বড় অবদান রয়েছে স্মিথের। আলোকস্বল্পতার কারণে ম্যাচ বন্ধ না হলে করে ফেলতে পারতেন সেঞ্চুরি, অপরাজিত ছিলেন ৯১ রানে। অন্যদিকে ওয়ার্নার আউট হয়েছেন মাত্র ২ রান করে।

ম্যাচে টসে জিতে আগে ব্যাট করতে নেমে ২৮৬ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় নিউজিল্যান্ড একাদশ। দলের পক্ষে ব্যাক টু ব্যাক সেঞ্চুরি হাঁকান উইল ইয়ং। তার ১০৮ বলে খেলা ১১১ রানের পাশাপাশি ওপেনার জর্জ ওয়াকারের ব্যাট থেকেও আসে ৫৯ রান। বল হাতে ৪ উইকেট নেন প্যাট কামিনস।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে আলোকস্বল্পতার কারণে ম্যাচ বন্ধ হওয়ার আগে ৪৩ ওভার ব্যাট করে ৫ উইকেট হারিয়ে ২৪৮ রান করতে সক্ষম হয় অস্ট্রেলিয়া একাদশ। ডেভিড ওয়ার্নার ২ রান করে ফেরত গেলেও মোটামুটি রানের দেখা পেয়েছেন বাকিরা।

উসমান খাজা ২৩, শন মার্শ ৩২ এবং মার্কস স্টয়নিস আউট হন ১৫ রান করে। গ্লেন ম্যাক্সওয়েলকে সঙ্গে নিয়ে ৫ম উইকেটে ১০৪ রান যোগ করেন স্মিথ। ইনিংসের ৪৩তম ওভারের শেষ বলে ম্যাক্সওয়েল আউট হন ৪৮ বলে ৭০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে।

নিজের ইনিংসে ৬টি চারের পাশাপাশি ৩টি ছক্কা হাঁকান ম্যাক্সওয়েল। তিনি আউট হওয়ার পরই বন্ধ হয়ে যায় খেলা। তখন ১০৮ বলে ১০ চারের মারে ৯১ রানে অপরাজিত ছিলেন স্মিথ। ডি-এল মেথডে ১৬ রানে এগিয়ে থাকায় ৫ উইকেটে জয়ী ঘোষণা করা হয় অস্ট্রেলিয়া একাদশকে।

এ সিরিজের প্রথম ম্যাচ জিতেছিল অস্ট্রেলিয়া, দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে সিরিজে সমতা এনেছিল নিউজিল্যান্ড একাদশ। শেষ ম্যাচটি জিতে সিরিজ বাগিয়ে নিল অস্ট্রেলিয়া একাদশ।

প্রথম ম্যাচে ৩৯ রানের ইনিংস খেলে ফর্ম ধরে রাখার আভাস দিয়েছিলেন ওয়ার্নার। কিন্তু পরের দুই ম্যাচে তার রান যথাক্রমে ০ এবং ২। অন্যদিকে প্রথম ম্যাচে ২২ রানে আউট হওয়া স্মিথ, পরের দুই ম্যাচে খেললেন ৮৯ এবং ৯১ রানের অপরাজিত দুইটি ইনিংস।

source: ভোরের কাগজ

LEAVE A REPLY