টানা ৬ ম্যাচে পরাজয়ের লজ্জা কোহলির বেঙ্গালুরুর

বেঙ্গালুরুর টানা ষষ্ঠ হার

শ্রেয়াস আয়ারের ফিফটিতে সহজ জয় পায় দিল্লিআইপিএলে ৬ ম্যাচ খেলেও জয়ের দেখা পেলো না রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। আজ রোববার তারা হেরেছে দিল্লি ক্যাপিটালসের কাছে। প্রতিপক্ষের মাঠে দিল্লি জিতেছে ৪ উইকেটে।

এম. চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে টস হেরে ব্যাট করতে নামে বেঙ্গালুরু। কাগিসো রাবাদার পেসে খুব বেশিদূর যেতে পারেনি তারা। ৮ উইকেটে করে ১৪৯ রান। জবাবে শ্রেয়াস আয়ারের হাফসেঞ্চুরিতে ১৮.৫ ওভারে ৬ উইকেটে ১৫২ রান করে দিল্লি।

৬ ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে পাঁচ নম্বরে উঠে গেছে দিল্লি। আর কোনও পয়েন্ট নেই বেঙ্গালুরুর, সবার শেষ দল তারা।

রাবাদা ৪ ওভার বোলিং করে চারজন ব্যাটসম্যানকে বিদায় করেছেন, রান দেন ২১টি। এবি ডি ভিলিয়ার্স ও বিরাট কোহলির গুরুত্বপূর্ণ দুটি উইকেট নেন দক্ষিণ আফ্রিকান পেসার। এছাড়া ১৮তম ওভারে জোড়া আঘাতে আকসদীপ নাথ (১৯) ও পবন নেগিকে (০) ফেরান রাবাদা।

কোহলির উইকেট নেওয়ার পর রাবাদার উদযাপনডি ভিলিয়ার্স মাত্র ১৭ রানে স্বদেশী পেসারের শিকার হন। ৬৬ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর বেঙ্গালুরুর হহাল ধরেন কোহলি। মঈন আলীর সঙ্গে ৩৭ রানের জুটি গড়েন অধিনায়ক। এরপর নাথের সঙ্গে ৩০ রান যোগ করে বিদায় নেন তিনি। ইনিংস সেরা ৪১ রান করে আউট হন কোহলি। মঈনের ১৮ বলে ৩২ রানের ইনিংসটি ছিল উল্লেখযোগ্য।

দিল্লির পক্ষে ক্রিস মরিস দুটি উইকেট নিয়ে বোলিংয়ে ভালো অবদান রাখেন।

লক্ষ্যে নেমে তৃতীয় বলে শিখর ধাওয়ান (০) আউট হলে পৃথ্বি শকে নিয়ে আয়ারের ৬৮ রানের জুটিতে দিল্লি ঘুরে দাঁড়ায়। পৃথ্বি ২৮ রান করেন। এরপর কলিন ইনগ্রামের (২২) সঙ্গে আয়ারের ৩৯ রানের জুটি সহজ জয়ের ভিত গড়ে দেয়।

১৮তম ওভারে নবদীপ সায়নির জোড়া আঘাতে আয়ার ও মরিস বিদায় নেন। লক্ষ্য থেকে ৫ রান দূরে থাকতে আউট হন আয়ার। দিল্লি অধিনায়ক ৫০ বলে ৮ চার ও ২ ছয়ে ৬৭ রান করেন।

বেঙ্গালুরুর পক্ষে সায়নি সর্বোচ্চ দুটি উইকেট নেন। ম্যাচসেরা হয়েছেন দিল্লির পেসার রাবাদা। ক্রিকইনফো

source: ভোরের কাগজ

LEAVE A REPLY