টি-টোয়েন্টিতেও নিউ জিল্যান্ডের সামনে অসহায় পাকিস্তান

ট্রেন্ট বোল্ট বিশ্রামে, নেই নিয়মিত অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনও। বদলে গেছে সংস্করণ। কিন্তু বদলাল না দুই দলের পারফরম্যান্সের চিত্র। ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশড হওয়া পাকিস্তানি ব্যাটিংয়ের দৈন্যদশা টি-টোয়েন্টিতেও। জয়ে সিরিজ শুরু করল নিউ জিল্যান্ড।

টি-টোয়েন্টি র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষে এই দুই দল। কিন্তু মাঠের লড়াইয়ে নেই সেটির প্রমাণ। দুইয়ে থাকা পাকিস্তানকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে শীর্ষে থাকা নিউ জিল্যান্ড।

তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথমটিতে ওয়েলিংটনে সোমবার পাকিস্তান গুটিয়ে যায় ১০৫ রানেই। নিউ জিল্যান্ড জিতেছে ২৫ বল বাকি রেখে।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামা পাকিস্তান ধুঁকেছে শুরু থেকেই। নতুন বলে ছোবল দেন এই ম্যাচের অধিনায়ক টিম সাউদি। পরে দারুণ বোলিং করেছেন অন্যরাও। ৫৩ রানেই হারায় তারা ৭ উইকেট।

পাঁচে নামা বাবর আজম ও নয়ে নামা হাসান আলির সৌজন্যে কোনো রকমে একশ পার হতে পারে তারা। ৪১ বলে ৪১ করেন বাবর। দুই ছক্কায় ১২ বলে ২৩ হাসান।

৪ ওভারে ১৩ রানে ৩ উইকেট নেন সাউদি, ২৬ রানে ৩টি তার নতুন বলের জুটি সেথ র‌্যান্স। বাঁহাতি স্পিনে মিচেল স্যান্টনার ২ উইকেট নিয়েছেন ৪ ওভারে ১৫ রান দিয়ে।

রান তাড়ায় নিউ জিল্যান্ড ২ উইকেট হারিয়েছিল দ্রুত। কিন্তু জিততে খুবএকটা বেগ পেতে হয়নি তাদের। দলকে এগিয়ে নেন ওপেনার কলিন মানরো। পরে টম ব্রুস ও রস টেইলরের ব্যাটে জিতে যায় দল।

একটি উইকেট নেওয়ার পর ৪১ বলে অপরাজিত ৪৯ রান করে ম্যাচের সেরা মানরো।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

পাকিস্তান: ১৯.৪ ওভারে ১০৫ (ফখর ৩, আমিন ০, নওয়াজ ৭, সোহেল ৯, বাবর ৪১, সরফরাজ ৯, শাদাব ০, আশরাফ ৭, হাসান ২৩, আমির ৩, রাইস ০*; র‌্যান্স ৩/২৬, সাউদি ৩/১৩, ডি গ্র্যান্ডহোম ০/১১, কিচেন ১/৩, সোধি ০/২৫, স্যান্টনার ২/২৫, মানরো ১/১২)

নিউ জিল্যান্ড: ১৫.৫ ওভারে ১০৬/৩ (গাপটিল ২, মানরো ৪৯*, ফিলিপস ৩, ব্রুস ২৬, টেইলর ২২*; আমির ০/১৩, রাইস ২/২৪, শাদাব ১/১৮, হাসান ০/২৮, আশরাফ ০/৮, নওয়াজ ০/১৪)।

ফল: নিউ জিল্যান্ড ৭ উইকেটে জয়ী

সিরিজ: ৩ ম্যাচ সিরিজে নিউ জিল্যান্ড ১-০তে এগিয়ে

ম্যান অব দা ম্যাচ: কলিন মানরো

LEAVE A REPLY